আন্দোলন নয়, নির্বাচনে ঘায়েল করতে হবে সরকারকে: খালেদা জিয়া

‘আন্দোলন নয়, নির্বাচনের মাধ্যমেই আওয়ামী লীগ সরকারকে ঘায়েল করতে হবে’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

আজ রাত ১০টায় বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে খ্রিস্টান এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে তিনি এ মন্তব্য করেন। বড়দিন ও নতুন বছরের আগমন উপলক্ষে খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ খালেদা জিয়ার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে তাঁর কার্যালয়ে আসেন।

এসময় খালেদা জিয়া বলেন, আপনারা যে যেখানে রয়েছেন তারা বিএনপির প্রতীক ধানের শীষ মার্কার প্রতি সম্মান জানিয়ে এর পক্ষে কাজ করুন। তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় আসলে সকল ধর্মের লোকেরা শান্তিতে বসবাস করবে। কারো প্রতি কোন ধরনের বৈষম্য করা হবে না।  

সরকারের কঠোর সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে বিভেদ তৈরি করে রেখেছে।’

খালেদা বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে উচ্চ আদালত রং হেডেড বলেছে। আদালত যৌক্তিক কথা বলেছেন। তার অবস্থান গণভবনে হতে পারে না। খালেদা জিয়া বলেন, ‘এমন মানসিক রোগির অবস্থান গণভবনে হতে পারে না। তার অবস্থান পাবনার পাগলা গারদে। তিনি সুস্থ হয়ে রাজনীতিতে ফিরে আসুন।’

তিনি আরো বলেন, আ. লীগ ১৭৩ দিন হরতাল করেছে, গাড়ি পুড়িয়েছে। তারপরও পুলিশ দিয়ে গুলি করার চিন্তা করিনি। কিন্তু তারা বিএনপির নেতাকর্মীদেরকে রাস্তায় দাঁড়ানোর সুযোগ দেয়াতো দূরের কথা, গুলি করছে।

খালেদা জিয়া আরো বলেন, ‘বিচার বিভাগে ন্যায় বিচার পাওয়া যায় না। আওয়ামী লীগ খুন করে গেলেও জামিন পায়। আর আমাদের নেতারা গেল তাদের সেকেন্ড হোমের পাঠানো হয়।’

দেশে গণতন্ত্র নেই দাবি করে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ বলে কোনো দল নেই। প্রশাসন কাজ করতে পারছে না। জালেম সরকারের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে খ্রিস্টান সম্প্রদায়কে যিশু খ্রিস্টের কাছে প্রার্থনা করতে আহ্বান জানান তিনি।

এসময় অন্যদের মধ্যে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও ধর্মবিষয় সম্পাদক এডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।